তৃতীয় শ্রেণি · বাংলা

05:00

  • 1. কুঁজো বুড়ি বাড়ি পাহারা দিতে কাদের বলল? 

  • 2. বিপদ দেখে বুড়ি শিয়ালকে বলেছিল- “আগে নাতনির বাড়ি যাই। খেয়েদেয়েমোটাতাজা হয়ে আসি।” এ কথায় বুড়ির কিসের পরিচয় পাওয়া যায়?

  • 3. নিমেষেই ছুটে এলো বুড়ির কুকুর তিনটি। কেন?

  • 4. নাতনি বুড়িকে লাউয়ের খোলে ঢুকিয়ে সঙ্গে কী কী খাবার দিল?

  • 5. এক ছিল কুঁজো বুড়ি। বুড়ির ছিল তিনটি কুকুর। রঙ্গা, বঙ্গা আর ভুতু। বুড়ি ঠিককরল নাতনির বাড়ি যাবে। তাই রঙ্গা, বঙ্গা আর ভুতুকে ডাকল। বলল, তোরা বাড়িপাহারা দে। আমি নাতনিকে দেখে আসি।কুকুর তিনটি বলল, আচ্ছা।বুড়ি রওয়ানা হলো। লাঠি ঠুক ঠুক করে কুঁজো বুড়ি চলল। খানিক দূরে যেতেই এক
    শিয়ালের সঙ্গে বুড়ির দেখা। শিয়াল বলল, আমার খুব খিদে। বুড়ি, তোমাকে আমি
    খাব। বুড়ি বুদ্ধি করে বলল, আমাকে এখন খেয়ো না। আমার গায়ে কি মাংস আছে? আগে নাতনির বাড়ি যাই। খেয়েদেয়ে মোটাতাজা হয়ে আসি। তখন বরং খেয়ো। শিয়াল
    বলল, ঠিক আছে।

    অনুচ্ছেদটিতে কোন বিষয়টি ফুটে উঠেছে?

  • 6. বুড়ি কোথায় যাবে ঠিক করল?

  • 7. বুড়ি কাদের বাড়ি পাহারা দিতে রেখে গেল?

  • 8. খানিক দুরে যেতেই কার সঙ্গে বুড়ির দেখা হলো?

  • 9. শিয়াল বুড়িকে কী করতে চাইল?

  • 10. ছোট এক পিঁপড়ে একদিন খাবারের খোঁজে বনের পথে চলেছে। পথের দুপাশে বড় বড়গাছ, লতাপাতা, ঘাস। তারই পাশ দিয়ে ছোট্ট পিঁপড়ে আস্তে আস্তে হাঁটে। হাঁটতেহাঁটতে বেলা বাড়ে। বনের ধারে বয়ে চলেছে একটি ছোট্ট নদী। পিঁপাসায় কাতরক্লান্ত পিঁপড়ে। ধীরে ধীরে সে নদীর পাড় বেয়ে নামতে শুরু করে। পানির কাছে সে পৌঁছেও যায়। সাবধানে পানির কাছে গিয়ে সে পানি খায়। নদীতে তখন অনেক ঢেউ।পানি খেতে গিয়ে হঠাৎ ঢেউয়ের ধাক্কায় ভেসে গেল ছোট্ট পিঁপড়ে। তীরে ওঠার অনেক চেষ্টা করল সে। কিন্তু কিছুতেই উঠতে পারল না। পিঁপড়ে বনের পথে কেন চলেছে?